অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং- সফল হবার কিছু কার্যকরী টিপস !


আজকে আপনাদের সামনে উপস্থিত হলাম অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর খুটিনাটি কিছু বিষয় নিয়ে শেয়ার করার উদ্দেশ্যে। অনেকদিন ধরেই ভাবছিলাম অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং নিয়ে পোস্ট লিখবো, ঠিক সময় করে উঠতে পারছিলাম না। আমার এই লেখাটি ভালোভাবে আয়ত্ত করতে পারলে আশা করি আপনাদের উপকারে আসবে।


প্রফিটেবল নিশ বাছাই করা- আপনাকে শুরু করতে হবে একটি প্রফিটেবল নিশ বাছাই করার মাধ্যমে। নিশ বাছাই করার সময় আপনার জানাশুনা এবং কাজ করতে পারবেন এমন বিষয়কে গুরুত্ব দেওয়া ভালো কাজে লাগে। তবে যখন আপনি কিওয়ার্ড রিসার্চ করবেন তখন অবশ্যই চেষ্টা করবেন যেন আপনার কিওয়ার্ডটা বাইং বা কল টু অ্যাকশন কিওয়ার্ড হয়। আর সার্চ ভলিওম টা দেখবেন ইউ এস এ ভিত্তিক। তাহলে ভালো ফলাফল পাবেন। কারন এখানকার মানুষ সব থেকে বেশি কেনাকাটা করে আর তাই আপনাকে এই লোকেশন টার্গেট করতে হবে।

প্রোডাক্ট বাছাই করা- আপনি যখন কোন প্রোডাক্ট বাছাই করবেন তখন একটু দেখে নিবেন যে সেই প্রোডাক্টটি এভারগ্রীন প্রোডাক্ট কিনা। মানে আপনি যে প্রোডাক্ট সিলেক্ট করছেন সেটি অন্তত কিছু বছর বাজারে চলবে কিনা। যেমন একটি নিদিষ্ট ব্রান্ডের জুতা বা এমন কিছু। তা না হলে দেখা যাবে যে, যেই প্রোডাক্ট বাছাই করলেন ওটার চাহিদা ইউজারের নিকট কমে যাবে।  তাই চেষ্টা করুন এভারগ্রীন প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করতে।

প্রোডাক্ট রেটিং- অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে আপনি যে প্রোডাক্ট গুলা প্রোমোট করবেন সেগুলার রেটিং যেন ভালো হয়। আমি ব্যক্তিগতভাবে বলবো মিনিমাম ৪.০ থাকে আর ম্যাক্সিমাম তো ৫। আর পজিটিভ ইউজার রিভিউ যেন মিনিমাম ৫+ থাকে।

প্রোডাক্ট রিভিউ- আপনার প্রোডাক্ট রিভিউটা এমন হতে হবে যেন আপনি নিজে সেই প্রোডাক্টের ক্রেতা আর আপনি আপনার নিজের অভিজ্ঞতা থেকে রিভিউ লিখছেন। তাহলে দেখবেন আপনার সেল ভালো হবে আর আপনার সাইটের প্রতি মানুষের আগ্রহ অনেক বাড়বে।

প্রোডাক্ট প্রাইস- প্রোডাক্ট প্রাইস এখানে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনি যদি খুব কম দামের প্রোডাক্ট প্রোমোট করেন তবে সেগুলা সেল হলে আপনি খুব বেশি লাভবান হবেন না আবার আপনি যদি তুলনামুলক বেশি দামের প্রোডাক্ট প্রোমোট করেন তবে আপনার সেল অনেক কমে যাবে। তাই সব সময় চেষ্টা করবেন যেন প্রোডাক্ট প্রাইস ক্রেতা সাধারণের হাতের নাগালের ভেতরে থাকে। আমি  ব্যক্তিগতভাবে  ৬০ ডলার থেকে ২০০ ডলার মূল্যের প্রোডাক্ট প্রোমোট করি।

নতুন আইডিয়া বের করা- আপনি আপনার প্রোমোট করা প্রোডাক্ট গুলা ভালো করে মনিটর করবেন আর খেয়াল করবেন যে, কোন কোন প্রোডাক্ট বেশি সেল হচ্ছে। তখন যেগুলা বেশি সেল হবে সেগুলা নিয়ে বেশি বেশি কাজ করবেন বা ওইরকম প্রোডাক্ট আরও বেশি করে প্রোমোট করবেন।

SHARE THIS

0 Comments:

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।