করোনা: সরে গেলেন না শুধু বাবা আর মা

একজন মা তার পাঁচ সন্তানকে আগলে রাখতে পারেন। বড় করতে পারেন। কিন্তু সেই পাঁচ সন্তানই একজন মাকে আগলে রাখতে পারেন না। এজন্য মায়ের সাথে দুনিয়ার কারো তুলনা হয় না। করোনা আতংকে সবাই যখন পালিয়ে বাঁচতে চাইছে, তখনই মৃত্যু ঝুঁকি জেনেও করোনায় মৃত সন্তানকে আগলে বাড়ি নিয়ে যাওয়ার একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। এই ছবি যেন মাকে বিশ্ববাসীর সামনে নতুন করে উপস্থাপন করেছে। ছবিটি নতুন, কিন্তু এই দৃশ্য চিরকালের। সমাজ পাল্টাবে, পরিস্থিতি বদলে যাবে। তবে এই দৃশ্য হয়তো কোনদিনও পাল্টাবে না।



করোনাভাইরাসের আতংকে দেশে দেশে আত্মীয়-অনাত্মীয় কেবলই দূরে সরে যাচ্ছে। এই ভাইরাস থেকে বাঁচার একমাত্র পথ হচ্ছে দূরে থাকা। সামাজিক দূরত্ব এই রোগ প্রতিরোধের প্রধান হাতিয়ার হিসেবে স্বীকৃত। তবে এই সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে গিয়ে অনেকে অমানবিক দৃষ্টান্তও স্থাপন করছে। পিতাকে হাসপাতালে ফেলে পালিয়েছে সন্তান; পরিবার।


অসুস্থ পিতাকে মাঠের মাঝখানে রেখে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। মৃত স্বজনের লাশ রাস্তায় রেখে চলে গেছে আত্মীয়রা। পরিবার খবর নেয়নি। দাফন কাফনে এগিয়ে আসেনি। পুলিশ লাশ তুলে নিয়ে দাফন বা সৎকার করেছে। পরিবার পরিজন ধারে কাছে না আসায় অনাত্মীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানাজা পরিয়ে লাশ দাফন করছে, ইতোমধ্যে এমন নজিরও স্থাপিত হয়েছে। অবশ্য এর বাইরে অন্য দৃশ্যও আছে। গতকাল সোমবার এমনি একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হল। করোনা নিয়ে সবাই যখন পালানোর তোড়জোড় করছে, তখনই মৃত সন্তানের শিয়রে বসে আদর করছিলেন মা। পটিয়ার হাইদগাঁও এলাকার করোনা আক্রান্ত ছয় বছর বয়সী শিশুটি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। তার লাশ নিয়ে যাওয়া হয় গ্রামে। যাওয়ার সময় অ্যাম্বুলেন্সে বাচ্চার শিয়রে উদাস হয়ে বসে থাকা মা আনমনে মৃত সন্তানকে আদর করছিলেন। মাথায় কপালে হাত বুলাচ্ছিলেন। সন্তানের এভাবে চলে যাওয়া মাকে যেন জীবন-মৃত্যুর ব্যবধান ভুলিয়ে দিয়েছে। চরম ঝুঁকির মাঝেও সন্তানকে ছেড়ে না গিয়ে আদর করার এই দৃশ্য অনেকের চোখ ভিজিয়ে দিয়েছে। কড়া নেড়েছে মানবতাবোধে।



মৃত শিশুটির হতভাগ্য বাবাও সন্তানটিকে ছেড়ে যেতে পারেন নি। দাফন করার সময় বুকে আগলে লাশ নিয়ে যান কবরে। অথচ আদরের সন্তানের লাশের ভেতরে ঘাতক লুকিয়ে আছে। কোনো প্রোটেকশন ছাড়াই শেষবারের মত সন্তানকে বুকে রাখছিলেন বাবা। যেসব সন্তান মা-বাবার লাশ রাস্তায় ফেলে যাচ্ছেন, মাঠে রেখে যাচ্ছেন তাদের জন্য এই ছবিটি যেন বিশেষ বার্তা দিয়ে গেল।

SHARE THIS

0 Comments:

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।